Any Question?

+8801856991116 / +8801714092903
কেমন হওয়া উচিত পহেলা বৈশাখের সাজ

কেমন হওয়া উচিত পহেলা বৈশাখের সাজ

 

 

পহেলা বৈশাখ আসতে দেরি নেই আর। বৈশাখের উৎসব আমাদের বাঙালির। এই উৎসবে মেয়েদের বৈশাখের রঙে নিজেদের রাঙানোর এতো আয়োজন। মাথার চুল থেকে পা পর্যন্ত সাজে বাঙালি ললনারা। এই সময় আবহাওয়ার মতিগতি বোঝা দায়,কখনো মাথার ওপর গনগনে রোদ কখনো ঝুম বৃষ্টি। মেয়েদের সাজ তো তাই বলে থেমে থাকবেনা। চলুন জেনে নিই কীভাবে এই গরমে বৈশাখের আমেজটা আরামদায়কভাবে উপভোগ করবেনঃ 

 

 

 

 

পোশাকঃ পোশাকের ক্ষেত্রে সুতি কাপড় বেঁছে নেয়াই ভালো, সুতি কাপড় গরমে অনেক  আরামদায়ক। বৈশাখে সুতি শাড়ি বেছে নিতে পারেন ।আগে সাদা-লাল পাড়ের শাড়ি পরা হতো, কিন্তু এখন নানা রঙের শাড়ি পরা হয় বৈশাখে। একরঙা সুতি শাড়িতে চিকন পাড় ভালো লাগে।যেহেতু গরম তাই হাফহাতা বা স্লিভলেস ব্লাউজ পরতে পারেন। আবার শাড়ির সাথে মিল রেখে বাটিকের ব্লাউজ পরতে পারেন। এই দিনে শাড়ি বাঙালী স্টাইলে পরলেই ভালো লাগবে।

অনেকেই শাড়ির বদলে গরমের জন্য সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া পরতে পছন্দ করে। 

 

মেকআপঃ দীর্ঘ সময় গরমে বাইরে থাকতে হয় এই দিনে। তাই মেকআপ হওয়া উচিত হাল্কা বেইজের । মেকআপ করার আগে মুখে বরফ টুকরা ঘষে নিন এতে মেকআপ ত্বকের ভেতরে যাবেনা আর ঘাম কম হবে।প্রথমে ত্বকের রং থেকে এক ধাপ গাঢ় কনসিলার দিয়ে চোখের নিচের অংশ, ঠোঁটের পাশে ও মুখের যে যে অংশে রঙের অসামঞ্জস্যতা আছে, তা ঢেকে দিতে হবে। এরপর একই রঙের কমপ্যাক্ট পাউডার দিয়ে পুরো মুখে ভালোমতো পাফ করতে হবে। মুখে একটু পানি স্প্রে করে স্পঞ্জের সাহায্যে চেপে চেপে মেকআপ ভালোমতো বসাতে হবে।গায়ের রং চাপা হলে হালকা বাদামি রঙের ব্লাশন ব্যবহার করতে পারেন। গাঢ় বাদামি রং দিয়ে নাকের ধার ও থুতনির নিচের অংশ ঠিকঠাক (কনট্যুর) করে নেওয়া যেতে পারে। তবে এ কাজটি করতে হবে খুব নিখুঁতভাবে। চোখ গাড় করে সাজান।গাড় লিপস্টিক ব্যবহার করুন।ব্যাস সাধারণ তবে আকর্ষণীয়  লুকে হয়ে যাবে বৈশাখের সাজ।

 

 চুলের সাজঃ এই দিনটিতে চুল কেমন করে বাঁধবেন তা নিয়েই অনেকেই চিন্তায় থাকেন।গরম কাল তাই অনেকে চুল ছাড়া রাখতে বিব্রত বোধ করেন,তারা চুল বেণী বা খোঁপা করে রাখতে পারেন। বেশি বড় খোঁপা করলে মাথা ভারি হয়ে যায়, বেশি সময় থাকেও  না।তাই ছোট  খোঁপা করতে পারেন, খোঁপাতে একটি ফুল গুঁজে নিলে দেখতে ভালো লাগবে। যাদের চুল ছোট তারা ভালো করে আঁচড়ে ক্লিপ লাগিয়ে নিন। যারা চুল ছেড়ে রাখতে চান তারা একপাশে চুল নিয়ে অন্য পাশে একটি ফুল আটকিয়ে নিন। এতে মাথা হাল্কাও থাকবে আবার বৈশাখের আমেজটাও থাকবে। ফুল আটকাতে না চাইলে পরে নিবেন ফুলের মুকুট

 

চুড়ি ঃ বাঙালি নারীর হাত ভর্তি চুড়ি তো থাকতেই হবে! গয়না না পরলেও দুহাত ভর্তি চুড়ি সাজ পূর্ণ করে দেয়। শাড়ির পাড়ের সঙ্গে মিলিয়ে রেশমি চুড়ি পরতে পারেন। মাটির বা কাঠের চুড়িও কিন্তু বেশ মানিয়ে যায়।

 

গয়নাঃ বৈশাখী সাজের সঙ্গে গয়না না হলে কি চলে? সেক্ষেত্রে মাটির গয়না বেছে নিতে পারেন ।  আবার কাঠ,  রূপা, মুক্তা বা তামার মালা পরতে পারেন।ভারি গয়না পরতে না চাইলে ফুলের মালা বেছে নিন।

 

টিপ ঃ বৈশাখে লাল টিপটাই মানায় বেশি। আবার শাড়ির রঙের সঙ্গে মিলিয়ে টিপ পরতে পারেন। তবে যেকোনো রঙের শাড়ির সঙ্গেই  লাল টিপ মানিয়ে যায়।

 

ব্যাগ ও জুতা ও অন্যান্য

শাড়ির সঙ্গে ম্যাচিং করে ব্যাগ নিতে পারেন দেখতে ভালো লাগবে। কালো আর লাল কালার ব্যাগ মানিয়ে যায় সব রঙের শাড়ির সঙ্গে। মাঝারি সাইজের ব্যাগ ব্যবহার করুন। গরমকালের জন্য টুকটাক প্রয়োজনীয় জিনিস ব্যাগে রাখবেন; ছোটপানির বোতল, হাল্কা মেকআপ, রুমাল এইসব।তবে ব্যাগ যেন বেশি ভারি না হয়।

জুতা অনেকেই হিল পরে হাঁটতে পারেন না, আর এই উৎসবে  হাঁটতে তো হয়ই। তাই স্লিপার পরাই ভালো।

 

Posted on: 12-Apr-2017

Recent Post

Latest Comment

Add to Cart